উইন্ডোজ ক্রাশ করেছে? - আসুন সি ড্রাইভ সহ অন্যান্য ড্রাইভের ডাটা উদ্ধার করি

কম্পিউটার পরিচালনা করার জন্য অপারেটিং সিস্টেম অপরিহার্য। আর এর সিংহভাগ দখল করে আছে Microsoft-এর Windows OS (Operating System). আমরা Windows OS ব্যবহারের ক্ষেত্রে কমন যে সকল সমস্যার সম্মুখিন হই তার মধ্যে অন্যতম ও বিরক্তিকর একটি হচ্ছে কম্পিউটার ক্রাশ করা। নানাবিদ কারণে কম্পিউটারের উইন্ডোজ ক্র্যাশ করতে পারে। এদের মধ্যে কমন বিষয়গুলো হলো -

১. হার্ডওয়্যার কনফ্লিক্ট
২. ত্রুটিপূর্ণ র‌্যাম
৩. ত্রুটিপূর্ণ হার্ডডিস্ক
৪. ত্রুটিপূর্ণ সফটওয়্যার
৫. ভাইরাস
৬. ওভার হিটিং
৭. পাওয়ার সাপ্লাই সমস্যা
৮. কম মেমরি সম্পন্ন এক্সটার্নাল ডিভাইস (যেমন: প্রিন্টার, স্ক্যানার) ইত্যাদি।

অনেক সময় কম্পিউটার ক্র্যাশ করলে নতুন করে উইন্ডোজ সেটআপ ছাড়া ওপেন করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এমতাবস্থায় নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম দিলে সি ড্রাইভে থাকা সকল তথ্য হারিয়ে যায়। সাধারণত ডিফল্টভাবে Windows Operating System-এ Documents (My Documents), Download, Desktop ইত্যাদি ফোল্ডারগুলো C Drive-এ থাকে। আমরা যখন কোন কিছু ডেস্কটপে রাখি বা নেট থেকে কিছু ডাউনলোড করি কিংবা কোন অ্যাপ্লিকেশনে সেভ করে রাখা কাজ গুলো সাধারণভাবে C Drive-এ সেভ হয়ে থাকে। তাই নতুন করে উইন্ডোজ ইনস্টল করলে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মুছে যেতে পারে। পরবর্তীতে হয়তো রিকভার করে পুনরুদ্ধার করা সম্ভব। তবে তা সময় সাপেক্ষ ও কিছুটা অনিশ্চিত। যদি আমরা নতুন করে উইন্ডোজ ইনস্টল করার পূর্বে ক্র্যাশ করা কম্পিউটার ওপেন করতে পারি তাহলে সি ড্রাইভে থাকা সরিয়ে নেওয়া সম্ভব। এখানে আমি আমার জানা একটি ট্রিকস আপনাদের সাথে শেয়ার করবো। তো, শুরু করা যাক।

ডাটা পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া

১. প্রথমে আমাদের প্রয়োজন একটি লাইভ উইন্ডোজ সিডি। যা আমরা সরাসরি কোন সিডিতে রাইট করে বা কোন পেনড্রাইভে বুটাবল করে রান করাতে পারবো। নিচের ডাউনলোড লিংক থেকে ফাইলটি ডাউনলোড করে নিন।
ডাউনলোড
সাইজ ১৯৫ মেগাবাইট
Skip Ad করতে হবে
২. ফাইলটি ডাউনলোড হলে কোন একটি ব্ল্যাঙ্ক সিডিতে বা পেনড্রাইভে বুটাবল করে নিন। যদি সমস্যা মনে করেন তাহলে পরবর্তী পোস্টে চেষ্টা করবো পেনড্রাইভে বুটাবল করা দেখানো।

৩. সিডি বা পেনড্রাইভটি ক্র্যাশ হওয়া কম্পিউটারে ইনসার্ট করুন। কম্পিউটার ওপেন করে বায়াসে প্রবেশ করুন। কম্পিউটার ওপেন হওয়ার সময় বায়াসে প্রবেশ করার জন্য কোন কমান্ড দিতে হবে তা মনিটরে দেখায়। বায়াসে ঢোকার জন্য সাধারণত কমান্ড F2 (Function Key 2) বা F1 হয়ে থাকে। আপনার কম্পিউটারের জন্য কমান্ড ভালো করে দেখে নিন।

৪. BIOS-এ প্রবেশের পর Boot System থেকে CD Drive-কে First Priority দিন। আর যদি আপনি পেনড্রাইভ থেকে রান করাতে চান তাহলে Removable Device-কে First Priority দিন। নিজে না পারবে অভিজ্ঞ কারো সাহায্য নিন। অথবা ইউটিউবে কোন ভিডিও দেখে নিতে পারেন।

৫. BIOS-এর Setting ঠিকঠাকভাবে করা হলে Save করুন। Save করার জন্য সাধারণত F10 কমান্ড ব্যবহার করা হয়। কম্পিউটার রিস্টার্ট হয়ে সরাসরি সিডি বা পেনড্রাইভ থেকে রান হবে। এবার আপনার প্রয়োজনীয় ডাটাগুলো এক এক করে সরিয়ে নিন।

সতর্কতা: সরাসরি সিডি থেকে রান হবে তাই আপনার সিস্টেম অনেক স্লো কাজ করবে। একটি কাজ সম্পন্ন হবার পরে অন্য একটি কাজ করুন। কাজ চলাকালীন সিডি/ডিভিডি ট্রে খুলবেন না।

No comments:

Powered by Blogger.